বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এবার একটি গরু ও একটি খাসি কোরবানি দিচ্ছেন। বুধবার (২১ জুলাই) ঈদুল আজহার দিন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর গুলশান বাসভবন ফিরোজায় পশু দুটির কোরবানি হবে।

খালেদা জিয়ার একান্ত সচিব এ বি এম আব্দুস সাত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ম্যাডাম এবার একটি গরু ও একটি খাসি কোরবানি দেবেন। উনি বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। এ কারণে গরুর মাংস খান না। খুবই নরম খাবার খান।

তিনি আরও বলেন, ম্যাডামের দেওয়া কোরবানির পশুর মাংসের কিছু অংশ তার বাসভবনের স্টাফরা খাবারের জন্য রাখবেন। অধিকাংশ রাজধানীর কয়েকটি এতিমখানা এবং আশপাশের গরিবদের মধ্যে বিলি করা হবে।

এছাড়া খালেদা জিয়ার নামে তার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দুটি গরু কোরবানি দেওয়া হবে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিএনপির নেতাকর্মীরা তার নামে কোরবানি দিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

বিএনপি সূত্রে জানা যায়, করোনা মহামারির কারণে এবারের ঈদেও খালেদা জিয়ার সঙ্গে বিএনপির নেতাদের সাক্ষাৎ হচ্ছে না। তবে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভাই শামীম ইস্কান্দার ও তার স্ত্রী কানিজ ফাতেমা এবং বোন সেলিমা ইসলাম তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

অপর একটি সূত্র জানায়, ঈদের দিন সকালে নাস্তা খাওয়া পর খালেদা জিয়া লন্ডনে অবস্থানরত বড় ছেলে ও দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, পুত্রবধূ ডা. জোবাইদা রহমান ও নাতনি ব্যারিস্টার জাইমা রহমান এবং ছোট ছেলে মরহুম আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথি, তাদের দুই মেয়ে জাহিয়া রহমান ও জাফিয়া রহমানের সঙ্গে ভার্চুয়ালি ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। এরপর কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেবেন তিনি। দুপুরে পরিবারের সদস্যরা আসলে তাদের সঙ্গে খাবার খাবেন।

আব্দুস সাত্তার বলেন, প্রতি বছর ঈদে ম্যাডামের গুলশান কার্যালয় ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গেট টুগেদার হতো। তখন ম্যাডামের বাসা থেকে রান্না করা খাবার আসতো। করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার কিছুই হচ্ছে না।

ঈদে চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করার বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এবার ম্যাডামের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যাব কি না, এ বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপি চেয়ারপারসনের এক কর্মকর্তা জানান, ম্যাডাম গতকাল করোনার টিকা নিয়েছেন। এ অবস্থায় নেতাদের সঙ্গে তার শুভেচ্ছা বিনিময় করা সম্ভব হবে না। তবে, ঈদের দিন হয়তো দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দেখা করতে আসতে পারেন।