দক্ষিণ কোরিয়াতে ২০২২ সালের ন্যূনতম বেতন এই বছর থেকে প্রায় ৫ দশমিক ১ শতাংশ বাড়িয়ে প্রতি ঘণ্টায় ৯ হাজার ১৬০ ওন (৮ মার্কিন ডলার) নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন বর্ধিত বেতন হিসাবে প্রতিদিন বেসিক ৮ ঘণ্টায় ৭৩ হাজার ২৮০ ওন বেতন পাবেন।

এছাড়াও ওভারটাইম প্রতি ঘণ্টায় ১৩ হাজার ৭৪০ ওন, নাইট অ্যালাউন্স ৪ হাজার ৫৮০ ওন (রাত ১০টা থেকে সকাল ৬টা), সাপ্তাহিক ৪০ ঘণ্টায় ৩ লাখ ৬৬ হাজার ৪০০ ওন এবং মাসে ২০৯ ঘণ্টায় ১৯ লাখ ১৪ হাজার ৪৪০ ওন বেতন আসবে।

নতুন বেতন স্কেল অনুযায়ী, ২০২২ সালে একজন এমপ্লয়মেন্ট পারমিট সিস্টেম (ইপিএস) কর্মীর ন্যূনতম মাসিক বেতন বাংলাদেশি মুদ্রায় ১ লাখ ৪০ হাজার টাকার বেশি হবে।

শ্রম, ব্যবসায়ী ও সাধারণ জণগনের পক্ষ থেকে ৯ সদস্য করে মোট ২৭ জন প্রতিনিধির সমন্বয়ে গঠিত ত্রিপক্ষীয় একটি জাতীয় কমিশন ন্যূনতম বেতন স্কেল নির্ধারণকারী সংস্থা মজুরি কমিশন গত মঙ্গলবার এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। শ্রম ও ব্যবসায়িক প্রতিনিধিরা একীভূত প্রস্তাব নিয়ে ব্যর্থ হওয়ায়, সাধারণ জনগণের প্রতিনিধিরা পাঁচ দশমিক এক শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছিলেন।

সরকারি কমপ্লেক্স সেজং অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত চূড়ান্ত পূর্ণাঙ্গ অধিবেশন চলাকালীন প্রস্তাবিত বেতন স্কেল বৃদ্ধির প্রতিবাদে ব্যবসায়ী খাত থেকে ৯ জন সদস্য এবং শ্রম ও ইউনিয়ন থেকে চারজন সদস্য ভোট বয়কট করেন। অবশিষ্ট ১৪ জন সদস্য ভোটে অংশ নিয়েছিলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় বেতন স্কেল বৃদ্ধি কমিশনের প্রধান পার্ক জুন-সিক।

চলতি বছরের ঘণ্টাপ্রতি বেতন ৮ হাজার ৭২০ ওন থেকে বর্ধিত হয়ে, প্রায় ৪ দশমিক ৩৬ মিলিয়ন শ্রমিকের দেশে আগামী ৫ আগস্টের মধ্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিকভাবে বেতন স্কেল ঘোষণা করলেই, নতুন বেতন স্কেল আগামী বছর জানুয়ারির এক তারিখ থেকে কার্যকর হবে।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে ইনের ঘোষণা ছিল তার সময়কালে দেশের ন্যূনতম বেতন স্কেল সর্বোচ্চ বৃদ্ধি করা। তারই ধারাবাহিকতায় মুন প্রশাসনের সময় গত পাঁচ বছরে কোরিয়ায় ন্যূনতম বেতন স্কেল অত্যধিক বৃদ্ধি পেয়েছে।