প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধে চতুর্থ টিকা হিসেবে দেশে আজ (১৩ জুলাই) থেকে প্রয়োগ হতে যাচ্ছে মার্কিন প্রতিষ্ঠান মডার্নার টিকা। ঢাকাসহ দেশের ১২টি সিটি করপোরেশন এলাকায় গণহারে দেওয়া হবে এই টিকা।

সোমবার (১২ জুলাই) দিবাগত রাতে কোভিড টিকা প্রয়োগ সংক্রান্ত জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক ডা. মো. শামসুল হক এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) থেকে ঢাকাসহ ১২টি সিটি করপোরেশন এলাকায় মডার্নার টিকা প্রয়োগ শুরু হচ্ছে। প্রতিটি কেন্দ্রেই আমরা ইতোমধ্যে টিকা পাঠিয়ে দিয়েছি। আমাদের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

শামসুল হক বলেন, ঢাকার কয়েকটি কেন্দ্রে সিনোফার্মের টিকা প্রয়োগ চলছিল। মর্ডানার টিকা প্রয়োগ কার্যক্রম শুরু হওয়ায় সেগুলো এখন থেকে বন্ধ থাকবে।

এর আগে দেশে এখন পর্যন্ত তিনটি প্রতিষ্ঠানের কোভিড টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে। সেগুলো হলো- অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা, ফাইজার-বায়োএনটেক এবং সিনোফার্মের উৎপাদিত টিকা। তবে সবগুলো টিকার ক্ষেত্রেই গণটিকাদান কর্মসূচির আগে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করা হলেও কোনো পর্যবেক্ষণ ছাড়াই মডার্নার টিকার গণপ্রয়োগ হবে।

পর্যবেক্ষণ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, পর্যবেক্ষণ ছাড়াই গণহারে মডার্নার টিকা প্রয়োগ শুরু মূলত দুটি বিষয়ের ওপর নির্ভর করে। এক. আগের তিনটি টিকা প্রয়োগের অভিজ্ঞতা। দুই. এখন পর্যন্ত পৃথিবীর কোথাও মডার্নার টিকার মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর না পাওয়া।

এই বিষয়ে ডা. শামসুল হক বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশেই মডার্নার টিকা দেওয়া হচ্ছে। আমরাও ইতোমধ্যে দেশে টিকা কার্যক্রম পরিচালনা করছি। সবমিলিয়ে আমরা দেখলাম যে, ওই রকম চ্যালেঞ্জ আমাদের থাকছে না।

এরপরও মডার্নার টিকা নেওয়ার কারণে কারও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও তিনি। ডা. মো. শামসুল হক আরও বলেন, আমাদের কেন্দ্রগুলো কিন্তু সজাগ। আমাদের টিমের প্রত্যেকেই এ নিয়ে কাজ করছে।

গত ২৭ জুন ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর দেশে মডার্নার টিকার জরুরি ব্যবহারে অনুমোদন দেয়। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে টিকাটির অনুমোদন দেওয়া হয়।