চলতি অর্থবছরের (২০২০-২১) জন্য নির্ধারিত ব্যক্তি শ্রেণির করমুক্ত আয়সীমা অপরিবর্তিত রাখা হচ্ছে আগামী অর্থবছরের জন্যও। আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যক্তি শ্রেণির করমুক্ত আয়সীমা ৩ লাখ টাকায় রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩ জনু) জাতীয় সংসদ ভবনে আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপনকালে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এই প্রস্তাব করেন।

ব্যক্তি শ্রেণির করমুক্ত আয়সীমা প্রসঙ্গে বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী জানান, ২০০৯-১০ অর্থবছরে ব্যক্তি শ্রেণির করদাতাদের জন্য করমুক্ত আয়ের সীমা ছিল ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা ক্রমান্বয়ে বাড়িয়ে ২০২০-২১ অর্থবছরে তা ৩ লাখ টাকায় নির্ধারণ করা হয়েছে। নারী করদাতা, সিনিয়র করদাতা, প্রতিবন্ধী করদাতা ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য করমুক্ত এই আয়ের সীমা আরও বেশি।

অর্থমন্ত্রী জানান, ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ব্যক্তি শ্রেণির করদাতাদের করহার উল্লেখযোগ্যভাবে কমানোর কারণে ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য ব্যক্তি শ্রেণির করদাতার জন্য বিদ্যমান করহার অপরিবর্তিত রাখার প্রস্তাব করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ব্যক্তি শ্রেণির করদাতার জন্য বিদ্যমান এই করহার তৃতীয় লিঙ্গের করদাতাতের জন্যও প্রযোজ্য ছিল। তৃতীয় লিঙ্গের করদাতাদের সামাজিক আত্তীকরণের লক্ষ্যে বিশেষ বিধান চালুর পাশাপাশি তাদের করমুক্ত আয়ের সীমা ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা করার প্রস্তাব করছি।

বৃহস্পতিবার (৩ জুন) জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর অনুমোদনক্রমের আগামী (২০২১-২২) অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট সংসদে উত্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম ‍মুস্তফা কামাল। ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেটে ৭ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে। এতে ঘাটতি ধরা হয়েছে ৬ দশমিক ২ শতাংশ।