মতিঝিলের পরিবর্তে রাজধানীর কামরাঙ্গীর চরকে কেন্দ্রীয় বাণিজ্যিক অঞ্চলে রূপান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

বুধবার (১৯ মে) নগর ভবনের মেয়র হানিফ মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনকালীন বিগত এক বছরের সার্বিক কার্যক্রম ও অগ্রগতি নিয়ে ‘উন্নত ঢাকার ভিত রচনা’ শীর্ষক এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

মেয়র তাপস বলেন, ডিএসসিসির দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনার আওতায় শীতলক্ষ্যা ও বালু নদীর তীর ঘেঁষে প্রশস্ত রাস্তা, বাইসাইকেল লেন, ফুটপাথ, জগিং ট্রাক, সবুজায়নসহ বিনোদনের ব্যবস্থা সৃষ্টিতে প্রকল্প প্রণয়নের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এ ছাড়া নতুন কেন্দ্রীয় বাণিজ্যিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা, নবসংযুক্ত এলাকায় পরিকল্পিত উপশহর, উপনগর, জনপদ গড়ে তোলা এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় ৫০ তলাবিশিষ্ট একটি আন্তর্জাতিক মানের সম্মেলন কেন্দ্র নির্মাণে পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। অন্যদিকে জলাবদ্ধতা দূরীকরণ ও সড়ক অন্তর্জাল তৈরির পরিকল্পনা বিবেচনাধীন রয়েছে।

মেয়র বলেন, দখলমুক্ত ও পরিষ্কার করা জিরানি, মান্ডা, শ্যামপুর ও কালুনগর খালের পাড় ঘেঁষে দৃষ্টিনন্দন ওয়াকওয়ে, খেলার মাঠ, শিশুপার্ক স্থাপনসহ নগরবাসীর জন্য নান্দনিক পরিবেশ সৃষ্টি করার লক্ষ্যে খাল উন্নয়ন প্রকল্প প্রণয়ন করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর অভিপ্রায় অনুযায়ী পুরান ঢাকা ও কামরাঙ্গীর চরের মধ্যে দিয়ে বয়ে চলা আদি বুড়িগঙ্গা চ্যানেল পুনরুদ্ধার করে দৃষ্টিনন্দন করে গড়ে তোলার জন্য ফিজিবিলিটি স্ট্যাডি কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, করোনা মহামারির প্রথম ঢেউয়ের চূড়ান্ত প্রকোপকালে গত বছরের ১৬ মে করপোরেশনের মেয়র হিসেবে আমি দায়িত্বভার গ্রহণ করেছি। বর্তমানেও করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলা করে চলেছি। তারপরেও আমরা থেমে নেই। এর মাঝেই আমরা আমাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে চলেছি। করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত উন্নত বাংলাদেশ গড়ার অভিযাত্রায় আমরা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ঢাকা গড়ে তোলার লক্ষ্যে সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনা করে চলেছি।

মেয়র তাপস বলেন, আমি মনে করি, আমার ৫ বছর মেয়াদের মধ্যে বিগত ১ বছরে করোনার কারণে আমাদের কার্যক্রম কিছুটা বাধাগ্রস্ত হলেও উন্নত ঢাকার সোপান পানে ১টি মজবুত ভিত্তি রচনা করতে আমরা সক্ষম হয়েছি। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, আগামী দিনেও সবার সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে এবং আমরা সকলে মিলে একটি উন্নত ঢাকা গড়ে তুলব, ইনশাআল্লাহ।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মাদ, করপোরেশনের স্থায়ী কমিটিগুলোর সভাপতি ও সদস্য, সিটি করপোরেশনের বিভাগীয় প্রধানরা।