২০২০ সালের ৮ মার্চ বাংলাদেশে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর চলতি বছরের এপ্রিল মাসে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ শনাক্ত ও মৃত্যু হয়েছে। এপ্রিল মাসে মোট এক লাখ ৪৭ হাজার ৮৩৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং তাদের মধ্যে মারা গেছেন দুই হাজার ৪০৪ জন। অর্থাৎ গতমাসে গড়ে প্রতিদিন ৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এর আগে গত বছরের জুলাইয়ে এক মাসে সর্বোচ্চ এক হাজার ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল এবং ওই মাসে শনাক্তের সংখ্যা ছিল ৯৮ হাজার ৩৩০, যা গত বছরের জুলাই মাসের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ।

সর্বশেষ গত শনিবার (১ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তি বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২০২০ সালের মার্চ মাসে ৫১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল, যার মধ্যে ‍মৃত্যু হয় ৫ জনের।

পরের মাসে শনাক্ত হয়েছিল সাত হাজার ৬১৬ জন, আর মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৬৩। এরপর মে মাসে শনাক্ত হয়েছিল ৩৯ হাজার ৪৮৬ জন, যাদের মধ্যে মৃত্যু হয় ৪৮২ জনের। তারপরের মাসে শনাক্ত হয়েছিল ৯৮ হাজার ৩৩০ জন, তাদের মধ্যে মারা যান এক হাজার ১৯৭ জন। জুলাই মাসে করোনা শনাক্ত হয়েছিল ৯২ হাজার ১৭৮ জনের, তাদের মধ্যে মারা যান এক হাজার ২৬৪ জন।

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে শনাক্ত ২১ হাজার ৬২৯ জন, মৃত্যু ৫৬৮ জন; ফেব্রুয়ারি মাসে শনাক্ত ১১ হাজার ৭৭ জন, মারা যান ২৮১ জন।

তবে মার্চ মাস থেকে হঠাৎ করোনার প্রকোপ লাফিয়ে বাড়তে থাকে। মাসটিতে শনাক্ত ৬৫ হাজার ৭৯ জন, মারা যান ৬৩৮ জন। তবে এপ্রিল মাসে আগেকার সব রেকর্ড ভেঙে শনাক্ত হন এক লাখ ৪৭ হাজার ৮৩৭ জন এবং মারা যান সর্বোচ্চ দুই হাজার ৪০৪ জন।

এছাড়া শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) সকাল থেকে শনিবার (১ মে) সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও ৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৫১০ জনে।

একই সময়ে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৪৫২ জন। এতে মোট শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৬০ হাজার ৫৮৪ জন।