করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, তার স্বাস্থ্যের ধীরে-ধীরে উন্নতি হচ্ছে। যদিও তার দ্বিতীয় দফা করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তবে, তার চিকিৎসকরা আশা করছেন, শিগগিরই করোনা নেগেটিভ হবেন তিনি।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) দুপুরে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, গত শনিবার বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক হয়েছিল। সেখানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান চেয়ারপাসন খালেদা জিয়ার সর্বশেষ স্বাস্থ্য পরিস্থিতি সম্পর্কে সদস্যদের অবহিত করেন। তার স্বাস্থ্যের ক্রমোন্নতিতে সবাই সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং দ্রুত সম্পূর্ণভাবে রোগমুক্তির জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করেন।

খালেদা জিয়ার সঙ্গে যারা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, তারা সবাই বাসায় আছেন উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, তাদের শারীরিক অবস্থা ভালো। সবাই করোনা নেগেটিভ হয়েছেন। ম্যাডামসহ ৪ জন এখনো করোনা পজিটিভ।

এর আগে খালেদা জিয়ার করোনা আক্রান্তের ১৪ দিনের মাথায় ২৪ এপ্রিল আবারও টেস্ট করা হলে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ওইদিন রাতে তার মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসক ডা. এফ এম সিদ্দিকী বলেন, খালেদা জিয়ার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ হলেও তিনি শঙ্কামুক্ত। আশা করি আগামী ৪-৫ দিন পরে আমরা আবার তার করোনা টেস্ট করবো। তখন তিনি করোনা নেগেটিভ হবেন বলে আশা করি।

গত ১১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। তিনি ছাড়াও তার বাসভবন ফিরোজার আরও ৮ ব্যক্তিগত স্টাফ আক্রান্ত হন।

৭৫ বছর বয়সী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত। প্রায় আড়াই বছরের মতো কারাগারে থাকার পরে দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ায় পরিবারের আবেদনে সরকার গত বছরের ২৫ মার্চ তাকে সাময়িক মুক্তি দেয়। তখন থেকে তিনি গুলশানের ভাড়া বাসা ফিরোজায় থেকে ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে রয়েছেন।