বুধবার থেকে শুরু হওয়া ৮ দিনের `কঠোর লকডাউনে’ দেশের সব বাণিজ্যিক ব্যাংক বন্ধ থাকবে। এ সময় ব্যাংক শাখার পাশাপাশি আর্থিক সেবা দেয়া ব্যাংকের সব উপ-শাখা, বুথ ব্যাংকিং, এজেন্ট ব্যাংকিং সেবাও বন্ধ থাকবে। তবে সার্বক্ষণিক খোলা থাকবে এটিএম, ইন্টারনেট ব্যাংকিংসহ অনলাইন সব সেবা।

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে আগামী ১৪ এপ্রিল (বুধবার) সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এ সময় ব্যাংকও বন্ধ থাকবে। ব্যাংক শাখার পাশাপাশি আর্থিক সেবা দেওয়া ব্যাংকের সকল উপ-শাখা, বুথ ব্যাংকিং, এজেন্ট ব্যাংকিং সেবাও বন্ধ থাকবে। তবে সার্বক্ষণিক খোলা থাকবে এটিএম, ইন্টারনেট ব্যাংকিংসহ অনলাইন সব সেবা। বাংলাদেশ ব্যাংক আজ এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে।

সোমবার (১২ এপ্রিল, ২০২১) এ ব্যাপারে একটি সার্কুলার জারি করা হয়েছে। পাশাপাশি ১২ এপ্রিল, ২০২১ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস/আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ও সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন। তবে বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থলবন্দর এবং এ সংশ্লিষ্ট অফিসগুলো এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বহির্ভূত থাকবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারটি নিম্নে তুলে ধরা হলো-

করােনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতির অবনতির কারণে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কর্তৃক জারিকৃত ১২ এপ্রিল ২০২১ এর স্মারকে (০৪.০০.০০০০.৫১৪.১৬.০০৩.২০.১২০) ১৪ এপ্রিল ২০২১ হতে ২১ এপ্রিল ২০২১ পর্যন্ত সকল আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।
এ প্রেক্ষিতে তফসিলি ব্যাংকসমূহ কর্তৃক অনুসরণের জন্য নিম্নোক্ত নির্দেশনা জারি করা হলো-

০১। সরকার ঘােষিত বিধি-নিষেধ চলাকালীন সময়ে সাধারণভাবে সকল তফসিলি ব্যাংক বন্ধ থাকবে। এ সময়ে ব্যাংকের সকল কর্মকর্তা/ কর্মচারীকে নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করতে হবে।
০২। সমুদ্র/ স্থল/ বিমান বন্দর এলাকায় (পাের্ট ও কাস্টমস্ এলাকা) অবস্থিত ব্যাংকের শাখা/ উপশাখা/ বুথসমূহ খােলা রাখার বিষয়ে বন্দর/ কাস্টমস্ কর্তৃপক্ষের সাথে আলােচনাক্রমে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। উক্ত ব্যাংকিং সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে স্ব স্ব ব্যাংক প্রয়ােজনীয়তার নিরিখে সংশ্লিষ্ট অনুমােদিত ডিলার (এডি) শাখা এবং প্রধান কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগ সীমিত সংখ্যক জনবল দ্বারা খােলা রাখতে পারবে।
০৩। এটিএম ও কার্ডের মাধ্যমে লেনদেন চালু রাখার সুবিধার্থে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সহায়তায় এটিএম বুথগুলােতে পর্যাপ্ত নােট সরবরাহসহ প্রযােজ্য ক্ষেত্রে ইন্টারনেট ব্যাংকিং সুবিধা সার্বক্ষণিক চালু রাখার প্রয়ােজনীয় ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। এ নির্দেশনা ১৪ এপ্রিল ২০২১ তারিখ থেকে কার্যকর হবে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম বলেন, আপাতত সব ব্যাংকের শাখা ও অফিস বন্ধ থাকবে। কেবল খোলা থাকবে, রফতানি কাজের জন্য কাস্টমস সংশ্লিষ্ট ইডি শাখা ও বন্দর শাখাগুলো।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে কার্যরত বিদেশে ব্যাংকগুলোও বন্ধ থাকবে। কেবলমাত্র, স্থল নৌ এবং সমুদ্রবন্দর সংশ্লিষ্ট শাখাগুলো খোলা থাকবে। আর খোলা রাখা যাবে রফতানির প্রয়োজনে কাস্টমস সংশ্লিষ্ট ইডি শাখাগুলো।

সূত্রমতে, ১৪ থেকে ২০ এপ্রিল, ২০২১ পর্যন্ত সরকার আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধের যে নির্দেশনা দিয়েছে, তার মধ্যে সরকারি ও সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে এমনিতেই তিন দিন বন্ধ থাকতো ব্যাংক। তার সঙ্গে বাড়তি কয়েক দিনের জন্য ব্যাংক বন্ধের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। অবশ্য এর আগে গত সপ্তাহের লকডাউনে (৫-৭ এপ্রিল) সীমিত পরিসরে ব্যাংক খোলা রাখা হয়েছিলো।

এদিকে শেয়ারবাজারেও লেনদেন এক সপ্তাহ বন্ধ থাকতে পারে বলে জানিয়েছেন পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থার চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম। তিনি বলেন, আমাদের সিদ্ধান্ত ব্যাংক খোলা থাকলে শেয়ারবাজারও খোলা থাকবে। আর ব্যাংক বন্ধ থাকলে লেনদেনও বন্ধ থাকবে।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে ব্যাংকের লেনদেনের সঙ্গে সমন্বয় করে আজ সোমবার থেকে শেয়ারবাজারে আড়াই ঘণ্টার লেনদেন চলছে। কাল মঙ্গলবারও বাজারে আড়াই ঘণ্টা লেনদেন হবে। এরপর ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহ ব্যাংক বন্ধের কারণে শেয়ারবাজারেও লেনদেন বন্ধ থাকবে।