হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) পক্ষ থেকে একটি ‘ভেহিকেল মাউন্টেড ফগার মেশিন’ হস্তান্তর করা হয়েছে।

একটি পিক আপ গাড়ির উপরে স্থাপিত এ ফগার মেশিন দিয়ে এয়ারপোর্ট এলাকায় অল্প সময়ে মশার কীটনাশক প্রয়োগ করা যাবে।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেনের কাছে মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) ডিএনসিসির পক্ষ থেকে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সেলিম রেজা ভেহিকেল মাউন্টেড ফগার মেশিনটি হস্তান্তর করেন।

এ সময় বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান, ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জোবায়েদুর রহমান, হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন তৌহিদুল আহসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হস্তান্তরকালে সেলিম রেজা বলেন, গতবছর আমরা এডিস মশার উপদ্রব নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। শীতের শুরুতে এবং শেষে কিউলেক্স মশার উপদ্রব বাড়ে, এবারো বেড়েছে। এজন্য আমরা সাতদিনব্যাপী চিরুনি অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি। মশা নিয়ন্ত্রণে সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য ডিএনসিসি কয়েকটি ভেহিকেল মাউন্টেড ফগার মেশিন ক্রয় করেছে। হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকার জন্য এই ফগার মেশিনটি দেওয়া হলো।

এর ফলে কম সময়ে বেশী এলাকায় কীটনাশক ছিটানো সম্ভব হবে। আমরা আশা করি কর্তৃপক্ষ বিমানবন্দর এলাকার মশা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হবেন। মশা নিয়ন্ত্রণে ডিএনসিসির পক্ষ থেকে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন চলাচল মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলামকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, মশা নিয়ন্ত্রণে মেয়রের আন্তরিকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। এই ভেহিকেল ফগার মেশিনটির সাহায্যে এয়ারপোর্টের বিভিন্ন স্থানে কীটনাশক ছিটিয়ে মশা নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে। মশা নিয়ন্ত্রণে আমাদের সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।