আর স্বনির্ভর রোজগারকারির তকমা থাকছে না উবার চালকদের। অর্থাৎ তারা এবার থেকে উবার কোম্পানিতে কর্মরত হিসেবে গণ্য হবেন এবং তারা সর্বনিম্ন মজুরি পাবেন, এমনকি ছুটির দিনের বাড়তি বেতনও পাবেন। এমনই এক আদেশ দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের সর্বোচ্চ আদালত।

বলা হচ্ছে, আদালতের এই রায়ের কারণে বর্তমান অস্থির অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানটি মোটা অঙ্কের ভর্তুকি খরচের হাত থেকে রক্ষা পাবে।

বিবিসির খবরে উল্লেখ করা হয়েছে এই রায়ের পর উবার বলছে, খুব অল্পসংখ্যক চালকই এই রায়ের সুবিধাভুক্ত হতে পারবে এবং এটা উবারের ব্যবসায় বেশ পরিবর্তন আনবে।

এই রায় মানার আগে দীর্ঘদিন চলে আসা এই আইনি লড়াইয়ে তিনবার হেরেছে উবার কর্তৃপক্ষ এবং প্রতিবারই তারা আপিল করেছে।

যুক্তরাজ্যে এই রায় ঘোষণার পর দিন শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) যুক্তরাষ্ট্রের পুঁজিবাজারে উবারের শেয়ারের দাম কমেছে। কারণ, এই রায় ঘোষণায় লন্ডনে কী ধরনের প্রভাব পড়ে তা যাচাই করতে সময় নিতে চান বিনিয়োগকারীরা।

তবে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উবার চালকদের জন্য এটা একটা পরিস্থিতিও বটে। কারণ, তারা আর স্বনির্ভর উবার চালক থাকছেন না। তারা উবারের কর্মী হিসেবে গণ্য হবেন।

২০১৬ সালের অক্টোবরে প্রথম এই বিষয় নিয়ে আদালতের শরণাপন্ন হন দুই উবার চালক জেমস ফারার ও ইয়াসিন আসলাম। তারা দাবি করেন, তারা কাজ করেন উবার চালক হিসেবে অথচ উবার বলে তারা উবারের কর্মী নয়। আর এ জন্য উবার তাদের সর্বনিম্ন মজুরিও দেয় না আবার ছুটির দিনের বেনিফিটও দেয় না। এই রায় শুনে তারা স্বস্তি ও আনন্দিত হয়েছেন।

অ্যাপ ড্রাইভারস অ্যান্ড কুরিয়ারর্স ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট ইয়াসিন আসলাম বলেন, এটা আমাদের জন্য অনেক বড় একটা অর্জন। এটা প্রমাণ করতে পেরেছি যে দানব দানব কোম্পানির বিরুদ্ধে আমরা সংঘবদ্ধ হতে পারি ও অধিকার নিশ্চিত করতে পারি।

অধিকার আদায়ের প্রশ্নে আমরা হাল ছাড়ব না কখনোই। আমরা আমাদের আবেগের জায়গায়, অর্থনৈতিক জায়গায় ও সামাজিক ও শারীরিকভাবে যেমনই থাকি না কেন- আমরা আমাদের দাবির জায়গায় এক ও অভিন্ন।