করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এবার খুবই সীমিত সংখ্যক হাজির অংশগ্রহণে হজ অনুষ্ঠিত হবে। কারা হজের সুযোগ পাবেন তা নির্ধারণে আজ মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে নিবন্ধন।

জানা গেছে, ১০ জুলাই পর্যন্ত এ নিবন্ধন চলবে। যারা হজের সুযোগ পাবেন তাদের নাম ঘোষণা করা হবে আগামী ১৩ জুলাই। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আাগামী ৩০ জুলাই হজ পালিত হবে।

গত মাসে সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, করোনার বিস্তার রোধে এ বছর এক হাজারেরও কম সংখ্যক হাজির অংশগ্রহণে হজ পালিত হবে। পরে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, শুধু সৌদি নাগরিক এবং দেশটিতে আগে থেকেই বাস করা বিদেশিরা এ বছর হজে অংশ নিতে পারবেন, এই সংখ্যা হবে সর্বোচ্চ ১০ হাজার।

সৌদিতে বাস করা বাংলাদেশি নাগরিকরা হজে অংশ নিতে নিবন্ধন করতে পারবেন। তবে বাংলাদেশ থেকে কেউ নিবন্ধন করতে পারবেন না। সৌদিতে বাস করা বাংলাদেশিদের কতজন হজ করার সুযোগ পাবেন, সেই সংখ্যাও নির্ধারিত নয়।
সৌদি আরবস্থ বাংলাদেশ হজ মিশনের কাউন্সিলর মাকসুদুর রহমান সৌদি সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানান, সৌদিতে থাকা বিভিন্ন দেশের দূতাবাসের সঙ্গে সমন্বয় করে হাজি নির্বাচন করা হতে পারে।

মাকসুদুর রহমান জানিয়েছেন, বাংলাদেশ থেকে কেউ না পারলেও সৌদিতে বাস করা বাংলাদেশি নাগরিকরা হজে অংশ নিতে নিবন্ধন করতে পারবেন। তবে সৌদিতে বাস করা বাংলাদেশিদের কতজন হজ করার সুযোগ পাবেন, তা নির্ভর করছে সৌদি সরকারের সিদ্ধান্তের ওপর। এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক বার্তা দেয়া হয়নি।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আাগামী ৩০ জুলাই হজ পালিত হবে। ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের বৃহত্তম এ জমায়েতে প্রতি বছর বিভিন্ন দেশের প্রায় ২৫ লাখ মানুষ অংশ নেন। এ বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ৩৭ হাজার হজযাত্রী যাওয়ার কথা ছিল। গত এপ্রিল পর্যন্ত প্রায় ৬৩ হাজার মুসল্লি হজে যেতে নিবন্ধন করেছিলেন। করোনার কারণে তাদের কেউ এবার যেতে পারছেন না।

যারা নিবন্ধন বাতিল করে টাকা ফেরত নিতে চান, তারা ১০ জুলাইয়ের পর আবেদন করতে পারবেন। যারা টাকা ফেরত নেবেন না, তারা আগামী বছর নিবন্ধনে অগ্রাধিকার পাবেন।