সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে সব ধরনের সবজির দাম আবারও বেড়েছে। তবে স্বস্তি মিলেছে পেঁয়াজের বাজারে। গত কয়েক মাস ধরে বাড়তে থাকা পেঁয়াজের দাম গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই কমতে শুরু করেছে। বাজারে প্রতিকেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকায়, বার্মিজ পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি দরে।

তাছাড়া প্রতি কেজি দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায় এবং চায়না রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায়। এদিকে প্রতি কেজি দেশি আদা বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকা এবং চায়না থেকে আমদানি করা আদা ১৬০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে।

শীতের শেষে বাজারে আসতে শুরু করেছে সজনে ডাঁটা। তবে দাম বেশ চড়া। প্রতি কেজি সজনে বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকায়।

শুক্রবার (৬ মার্চ) রাজধানী সবচেয়ে বড় কাঁচাবাজার কারওয়ানবাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

সবজির বাজার ঘুরে দেখা যায়, গত সপ্তাহের তুলনায় সবজির দাম আবারও বেড়েছে। যদিও বাজারে সব ধরনের সবজি পর্যাপ্ত সরবরাহ রয়েছে। বাজারে বর্তমানে প্রতি কেজি,নতুন আলু ২০ টাকা, মুলা ৪০ টাকা, মটরসুটি ৬০ টাকা, বেগুল ৮০ টাকা, শিম ৫০ টাকা, কাচা পেপে ৪৫ টাকা, টমেটো ৪০ টাকা, কাঁচা মরিচ ১২০ টাকা,গাজর ৪০ টাকা, শসা ৬০ টাকা, সিমের বিচি ৮০ টাকা, ঢেঁড়স ১২০ টাকা, করল্লা ১২০ টাকা, পটল ১৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বাজারে প্রতি পিস বড় সাইজের ফুলকপি ও বাঁধাকপি ৩০ টাকা, লাউ ৭০ টাকা পিস,মিষ্টি কুমড়া ৫০ টাকা পিস বিক্রি হতে দেখা গেছে।

সজনে ডাঁটার দামের বিষয়ে জানতে চাইলে কারওয়ান বাজারের সবজি ব্যবসায়ী শেখ সবুজ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘বাজারে গত সপ্তাহের তুলনায় সব ধরনের সবজির দাম খানিকটা বেড়েছে। আর সজনে ডাঁটা বাজারে নতুন উঠেছে। আসছেও কম, ফলে দামটা বেশি। আমরা ৫ কেজির পাল্লা কিনি ১১০০ টাকায়। অর্থাৎ ২৪০ টাকা কেজি পাইকারি কিনি এবং ৩০০ টাকা কেজি খুচরা বিক্রি করছি’।

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে বাজার করতে আসা বেসরকারি চাকরিজীবী ফিরোজ মিয়া বার্তা২৪.কমকে বলেন, দীর্ঘদিন পর পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমে এসেছে বাজারে। তবে বর্তমান বাজারে সবজির দাম বেশ চড়া। কিছু কিছু সবজি একেবারে আমাদের নাগালের বাইরে চলে গেছে’।

এদিকে মাংসের বাজারে দেখা যায়, বাজারে প্রতি কেজি গরুর মাংস ৫৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৮৫০ টাকায় আর বকরির মাংস ৭৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে মুরগির দাম খুব একটা বাড়েনি। বয়লার মুরগি প্রতি কেজি ১২০ টাকা, কক মুরগি ১৮০ টাকা, পাকিস্তানি মুরগি ২৩০ টাকা, দেশি মুরগি ৪০০-৫০০ টাকা এবং হাঁস ৫০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজার ঘুরে প্রতি কেজি তেলাপিয়া মাছ ১৮০ টাকা, কৈ মাছ ২০০ টাকা, টেংরা মাছ ৫০০ টাকা, সরপুঁটি ২০০ টাকা, বড় সাইজের রুই মাছ ৩০০ টাকা, ছোট মাছ ৩৫০থেকে ৪০০টাকা, পাবদা মাছ ৫০০টাকা, চিংড়ি মাছ ৬০০-৭০০টাকা, রূপচাঁদা মাছ ৮০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।

বাজার করতে আসা আরেক ক্রেতা শরিফ উদ্দিন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘বাজারে এই দ্রব্যমূল্যের অরাজকতা নিয়ে দুঃখ করা ছাড়া আমাদের মত সাধারণ মানুষের কিছুই করার নাই।
ৃও
এদিকে কারওয়ানবাজারের মুদির দোকান ঘুরে দেখা যায়, সব ধরনের চালের দাম আগের মতোই বাড়তি রয়েছে। তবে স্বাভাবিক রয়েছে চিনি, আটা, ডাল, ময়দা এবং ডিমের দাম। কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে মসলার বাজারে এবং সয়াবিন তেলে।